এক্সেল ২০১৬ ইন্টারফেস পরিচিতি – এক্সেল বাংলা টিউটোরিয়াল – পর্ব ০৩

এক্সেল ২০১৬ ইন্টারফেস পরিচতি নিয়ে আজকের ৩নং পর্বে আমাদের সাথে থাকার জন্য আপনাকে স্বাগতম। কোন কিছু শেখার পূর্বে তার ইন্টারফেস সম্পর্কে পরিচিতি থাকা জরুরি।

এক্সেল একটি স্প্রেডশিট প্রোগ্রাম যা তথ্য সংরক্ষণ, সংগঠিত এবং বিশ্লেষণের সুবিধা প্রদান করে। অনেকেই এটা মনে করেন যে, এক্সেল কেবলমাত্র নির্দিষ্ট লোকেরা জটিল ডেটা প্রক্রিয়া করার জন্য ব্যবহার করে।

তবে যে কেউ খুব সহজেই প্রোগ্রামটির শক্তিশালী বৈশিষ্ট্যগুলির সুবিধা নিতে পারেন এবং বিভিন্ন বাজেট, চালান ইত্যাদি তৈরি করতে পারেন। মূলত: এক্সেল বিভিন্ন ধরণের ডেটা নিয়ে কাজ করা সহজ করে তোলে।

এক্সেল ২০১৬ ইন্টারফেস সম্পর্কে জানা

আপনি যদি পূর্বে এক্সেল 2010 বা 2013 ব্যবহার করে থাকেন তবে এক্সেল 2016 এর সাথেও পরিচিত হওয়া উচিত। আপনি যদি এক্সেলে নতুন হন তবে আপনার এক্সেল ইন্টারফেসের সাথে পরিচিত হওয়াটা বেশ জরুরি।

আর এর জন্য কিছুটা সময় দেওয়া উচিত। কারণ ইন্টারফেসটি চিনে নিতে পারলে প্রয়োজনীয় কমাণ্ডসমূহ প্রয়োগে সুবিধা হবে।

আপনি যখন প্রথম এক্সেল ২০১৬ চালু করবেন তখন এক্সেল এর Start Screen প্রদর্শন হবে। এখান থেকে নতুন ওয়ার্কবুক তৈরি ও রিসেন্ট ওপেনকৃত ওয়ার্কবুক ওপেন করতে পারবেন। এছাড়া বিভিন্ন টেমপ্লেট ব্যবহার করতে পারবেন।

নোট: বিভিন্ন ধরণের টেমপ্লেট পেতে মাইক্রোসফ্ট একাউন্ট লগইন করে নিতে হবে।

এক্সেল Start Screen হতে Blank workbook খুঁজে বের করুন এবং ক্লিক করুন। এক্সেল ২০১৬ এর ইন্টারফেস প্রদর্শিত হবে।

Start-Excel-2016-from-Desktop-in-Windows-7

আপনি যখন অ্যাক্সেল অ্যাপ্লিকেশন শুরু করবেন তখন নিচের বেসিক উইন্ডোটি প্রদর্শিত হবে। এক্সেল প্রোগ্রামে কাজ করতে চাইলে এই উইন্ডোর বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ অংশগুলো সম্পর্কে ধারণা থাকা আবশ্যক।

এক্সেল ২০১৬ এর ইন্টারফেস পরিচিতি

নিম্নে রিবনের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ অংশ বর্ণিত হলো:

Title Bar

এটি উইন্ডোর সবার উপরে মাঝে অবস্থান করে। এখানে প্রোগ্রামের নাম ও শীটের টাইটেল থাকে।

Quick Access Toolbar

File ট্যাব এর ঠিক ওপরে এর অবস্থান। কুইক একসেস টুলবারের উদ্দেশ্য হলো এক্সেলের সর্বাধিক ব্যবহৃত কমান্ডগুলির জন্য একটি সুবিধাজনক টুলবার। প্রয়োজনের ভিত্তিতে কুইক একসেস টুলবারটি কাস্টমাইজ করা যায়।

Quick-Access-Toolbar-in-Excel-Interface

Ribbon

মোট ৩টি উপাদানে রিবনে কমান্ডসমূহ সজ্জিত থাকে:

Ribbon-in-MS-Excel-2016

  • Tab – ট্যাবসমূহ রিবনের শীর্ষে অবস্থিত এবং এতে সম্পর্কিত কমান্ডের প্যানেল বা গ্রুপ রয়েছে। যেমন: Home, Insert, Design, Layout, References, Mailings, Review, View, Add-Ins ইত্যাদি।
  • Group – সম্পর্কিত কমান্ডগুলি সংগঠিত করে; প্রতিটি গ্রুপ/প্যানেলের নাম রিবনের নিচে অবস্থান করে। যেমন: Home ট্যাবের অধীনে প্যানেল বা গ্রুপসমূহ হলো Font, Paragraph, Style ইত্যাদি।
  • Commands – কমান্ডগুলি উপরে বর্ণিত প্রতিটি গ্রুপের মধ্যে অবস্থান করে।

Formula Bar

এখানে এ্যাকটিভ সেলের কনটেন্ট দেখাবে আর যদি সেলে কোন ফর্মূলা থাকে তবে ফর্মূলা দেখাবে। এখান থেকেও কোন সেলের টেক্সট কিংবা ফর্মূলা শুদ্ধ করা যাবে।

Name Box

এখানে একটিভ সেলের সেল এড্রেস (Cell Address) প্রদর্শিত হবে। এছাড়া একাধিক সেলকে কোন নির্দিষ্ট নাম দ্বারা ডিফাইন করা যায় এবং খুঁজে বের করা যায়।

View Button

স্ক্রিনের নীচের অংশে জুম নিয়ন্ত্রণের বামে অবস্থিত তিনটি বোতামের গোষ্ঠী আপনাকে এক্সেলের বিভিন্ন শীট দৃশ্যের মধ্যে স্যুইচ করতে দেয়।

  • Normal – প্রথমবার এক্সেল চালু করলে এক্সেল শীট যেভাবে প্রদর্শিত হয় সেটিই হলো নরমাল পেজ ভিউ।
  • Page Layout – পৃষ্ঠাগুলো প্রিন্ট করলে যেমন দেখাবে এ অবস্থায় তাই দেখাবে। সাধারণ প্রিন্ট করার পূর্বে Page Layout অবস্থাটি গুরুত্বপূর্ণ।
  • Page Break Preview – এ্যাকটিভ শীট পৃষ্ঠা বিভাজন অবস্থান প্রদর্শন করবে।

Zoom Control

এটি দ্বারা এক্সেল ওয়ার্কিং এরিয়া উইন্ডো সর্বনিম্ন ১০% ছোট এবং সর্বোচ্চ ৫০০% পর্যন্ত বড় করে প্রদর্শন করানো যায়। স্ট্যাটাস বারের সবার ডানে প্রদর্শিত থাকে।

৩ ভাবে জুম কন্ট্রোল করা যায়। মাইনাস (-) অপশন ক্লিক করলে Zoom Out এবং প্লাস (+) অপশন ক্লিক করলে Zoom In করা যায়।

এছাড়া স্লাইড বার মাউস দ্বারা বায়ে ড্রাগ কলে Zoom Out এবং ডানে ড্রাগ করেও Zoom In করা যায়।

Working Area [Sheet Area]

এখানে প্রয়োজনীয় ডাটা এন্ট্রি করা হয়। ফ্লাসিং ভার্টিক্যাল বারকে ইনসার্সন পয়েন্ট (Insertion Point) বলে। এই Insertion Point যেখানে প্রদর্শিত হবে কোন ডাটা এন্ট্রি করলে সেখানে এন্ট্রি হবে।

Column Bar

এক্সেল শীট রো এবং কলামের সমন্বয়ে তৈরি।

প্রতিটি শীটে ১৬,৩৮৪টি কলাম রয়েছে। যার প্রত্যেকটি কলাম A থেকে শুরু করে পর্যায়ক্রমে XFD পর্যন্ত ইংরেজি অক্ষর দ্বারা নামকরণ করা হয়েছে। চিহ্নিত কলামসমূহকে Column Header বলা হয়।

Row Bar

প্রতিটি শীটে ১০,৪৮,৫৭৬টি রো রয়েছে। যার প্রত্যেকটি রো 1 থেকে শুরু করে পর্যায়ক্রমে 1048576 পর্যন্ত নাম্বার দ্বারা নামকরণ করা হয়েছে। চিহ্নিত কলামসমূহকে Row Header বলা হয়।

Status Bar

একটিভ সেলের বর্তমান অবস্থা প্রদর্শন করে। একটি সেল ৪টি অবস্থা (Mode) প্রদর্শন করতে পারে।

  • Ready: এটি দ্বারা বোঝায় যে, ইউজার কর্তৃক ডাটা ইনপুট করতে প্রস্তুত।
  • Edit: এটি দ্বারা বোঝায় যে, একটিভ সেলটি Edit মোডে রয়েছে। এমতাবস্থায় ইনসার্সন পয়েন্ট পরিলক্ষিত হবে এবং সেলের লেখা শুদ্ধ করা যাবে।
  • Enter: ইউজার যখন কোন সেলে ডাটা ইনপুট করবে তখন স্ট্যাটাস বার এই মোড প্রদর্শিত করবে।
  • Point: কোন সেলে ফর্মূলা টাইপ করার সময় যখন মাউস কিংবা কীবোর্ড দ্বারা সেল রেফারেন্স দেয়া হয় তখন এই Point মোড প্রদর্শিত হয়।

নোট: Edit মোড একটিভেট করতে সেল পয়েন্টার ঐ সেলের ওপর রেখে কীবোর্ডের F2 ফাংশন কী চাপুন অথবা মাউস দ্বারা প্রয়োজনীয় সেলের ওপর ডাবল ক্লিক করুন।

Sheet Tab

এখানে শীটের নাম প্রদর্শিত হয়। এই শীট ট্যাবের ওপর ডাবল ক্লিক করেও শীটের নাম পরিবর্তন করতে পারবেন।

Scroll Bar

ওয়ার্কশীট ডানে-বায়ে এবং উপরে-নিচে উঠানামা করানোর জন্য ২টি স্ক্রোল বার রয়েছে। একটি Vertical Scroll Bar এবং অন্যটিকে Horizontal Scroll Bar বলা হয়।

Dialog Box Launcher

এটি রিবনের নিচের দিকে প্যানেল/গ্রুপের নিচে-ডানদিকে খুব ছোট তীর হিসাবে প্রদর্শিত থাকে। এই এ্যারো কী সম্বলিত বক্সটির ওপর ক্লিক করলে ঐ গ্রুপের ওপর বিস্তারিত অপশন প্রদর্শিত হবে।

Exit

উইন্ডোজ ভিত্তিক সকলে প্রোগ্রামেই এই ক্রস (X) বাটনটি পরিলক্ষিত হয়। এ বাটনে ক্লিক করে প্রোগ্রাম বন্ধ করা যায়। এটি টাইটেল বারের সবারে ডানে অবস্থান করে।

মাইক্রোসফ্ট এক্সেল ২০১৬ ইউজার ইন্টারফেস সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে নিচের ভিডিওটি দেখুন।

এক্সেল ২০১৬ ইউজার ইন্টারফেস নিয়ে আলোচনা এখানেই শেষ করছি। ইনশাআল্লাহ্, আগামীতে পর্ব নিয়ে উপস্থিত হবো।

টিউটোরিয়ালটি ইনফরমেশন ভিত্তিক হলে বন্ধু ও পরিচিত মহলে শেয়ার করুন। আপনার একটি শেয়ার আমাকে টিউন তৈরিতে অনুপ্রেরণা প্রদান করবে।

 584 total views,  1 views today

Spread the love

2 Comments

Leave a Comment